ক্রীড়ার মান উন্নয়নের স্বপ্ন নিয়ে অনুশীলনে নব নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান

0
29

স্টাফ রিপোর্টার

ফুটবল মাঠের মতই ভোটের রাজনীতিতে নিজেকে সফল ভাবে মেলে ধরে ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন আসাদুজ্জামান লিটন। সর্ব কনিষ্ঠ প্রার্থী ছিলেন তিনি। কিন্তু প্রায় ১৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে হ্যাবিওয়েট প্রার্থীদের পরাজিত করে নিজের বিজয় নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা প্রতিটি ইউনিয়নে ক্রীড়ার মান উন্নয়ন। ভোটারদের ভালোবাসার প্রতিদান দেওয়ার স্বপ্ন দেখছেন খোকসা উপজেলা পরিষদের নব নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান লিটন। তবে প্রতিবন্ধকতার কথাও ভাবছেন। শঙ্কা ও সম্ভাবনার দোলাচলেই নিজের বড় হয়ে ওঠা মাঠে স্বতীর্থদের নিয়ে যাত্রা শুরু করেলেন ফুটবল নিয়ে।

নির্বাচন শেষ হওয়ার দশ দিনের মাথায় শরিবার বিকালে অনুশীলন শুরু করেছেন ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান লিটন। অনুশীলনের ফাঁকে বয়সে কনিষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান জানান, খেলোয়ার তৈরী ও বাছায় একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় অন্তত একটি করে মাঠে এ বছর ফুটবল গড়াতে চান তিনি। দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা সদরের সেরা একাদশের সাথে ইউনিয়ন ওয়ারী প্রীতি ফুটবল ম্যাচ শুরু করার স্বপ্নও দেখছেন। ক্রিকেট ও এ্যাথেলেটিক নিয়ে সম্ভাবনার কথা জানালেন তরুন প্রজন্মের এ ক্রীড়া সংগঠক ও ভাইস চেয়ারম্যান।

গ্রামীন ফুটবলের সেরা খেলোয়ার আসাদুজ্জামান লিটন রাজধানী ঢাকার ওয়ারী, আরামবাগ স্পোটিং ক্লাবারের হয়ে প্রথম ও দ্বিতীয় ডিভিশনের মাঠ কাপিয়েছেন। ছেলে বেলা থেকেই স্বাধীন চেতা। উচ্চ ডিগ্রীও নিয়েছেন। সরকারী চাকুরির আবেদনের বয়স শেষ হয়নি এখনো। ইতোমধ্যে ক্রীড়া সামগ্রীরি ব্যবসা শুরু করেছেন। রাজস্ব বিভাগের কর্মচারী বাবা আকছেদ আলী সম্প্রতি অবসরে গেছেন। ছোট ব্যবসাটিই তার আয়ের একমাত্র উৎস।

৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদের র্নিাচনের তফশিল ঘোষনার পর বন্ধুদের চায়ের আড্ডায় আসাদুজ্জামান লিটনের ভাইস চেয়ারম্যানে দাঁড় করানোর প্রস্তাব আসে। মনোনয়ন জমার দিন ঘনিয়ে আসতে থাকে। অন্য দিকে ভক্ত সমর্থদের উৎসাহও বাড়তে থাকে। শেষ পর্যন্ত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে যান। জামানতের টাকা থেকে শুরু করে ব্যয়ের সিংহ ভাগ টাকা আসে শুভানুধ্যায়ীদের পকেট থেকে।

উপজেলার ক্রীড়ার মান উন্নয়নে ভোটার ও সমর্থকেদের কাছে দেওয়া প্রতিশ্রæতি বাস্তবায়ন নিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জান লিটন অনেকটাই চিন্তিত। তিনি জানান, দলীয় রাজনীতি করেন নি। ছোট ছোট ক্রিড়া সংগঠন চালিয়েছেন। উপজেলা পরিষদ একটি বড় সংগঠন। এখানে অনেক রাজনৈতিক চাপ থাকবে। সব কাটিয়ে ভোটারদের কল্যানে কতটুকু কাজ করতে পারবেন তা নিয়ে শঙ্কার কথা জানালেন। তবে নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে তার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভালো। তাই তেমন ভাবছেন না।