হাসপাতালে গৃহবধূর লাশ রেখে পলালো শ্বাশুড়ি-ননদ

0
14
প্রতিকী ছবি

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক গৃহবধূর মরদেহ রেখে শ্বাশুড়ি ও ননদ পালিয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (১৫ মে) দুপুর দুইটার দিকে এঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে হেফাজতে নিয়েছে। নিহত গৃহবধূর নাম বিনা খাতুন (২২)। তিনি উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের নন্দলালপুর গ্রামের মাঠপাড়া এলাকার আমিন হোসেনের স্ত্রী ও যদুবয়রা ইউনিয়নের উত্তর চাঁদপুর গ্রামের বিল্লাল শেখের মেয়ে।

স্বজনরা জানান, যৌতুকের টাকা চেয়ে না পেয়ে শ্বাশুড়ি শিল্পী খাতুন (৪৫) ও ননদ মুক্তা খাতুন (২৫) মিলে বিনাকে মারধরের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। পরে তারা মৃতদেহটি হাসপাতালে নিয়ে আসে। গৃহবধূর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হয়ে অভিযেুক্তরা পালিয়ে যায়।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, প্রায় দুই বছর আগে পারিবারিকভাবে নন্দলালপুর গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে আমিনের সাথে বিনা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর বাড়ির লোকজন যৌতুকের টাকার জন্য বিনাকে মারধর করতো। মারধর সইতে না পেরে সে প্রায় এক বছর বাবার বাড়িতে থাকত। এসব নিয়ে একাধিক বার সালিশ বৈঠক হয়। এক পর্যায়ে এই দম্পতির কোল জুড়ে একটি ছেলে সন্তান (৭ মাস) জন্ম নেয়। এরপর ২৫ হাজার টাকা যৌতুকসহ সন্তানটিকে নিয়ে গত শুক্রবার বাবার বাড়ি থেকে শ্বশুর বাড়িতে যায় বিনা খাতুন। আর বুধবার দুপুরে শ্বাশুড়ি শিল্পী ও ননদ মুক্তা খাতুন তাকে মারধরের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়ে যায়।

বিকালের থানায় গিয়ে দেখা যায়, থানার বারান্দায় একটি কাঠের বেঞ্চে প্যাকেটে মোড়ানো বিনার মরদেহটি রাখা আছে। থানার বাইরে স্বজনরা আহজারি করছে।

নিহত গৃহবধূর বাবা বিল্লাল শেখ বলেন, বিয়ের পর থেকে শ্বাশুড়ি শিল্পী ও ননদ মুক্তা ১০ লাখ টাকা ও একটি মোটর সাইকেলের জন্য বিনার উপর নির্যাতন করত। আমি গরিব বলে টাকা দিতে পারিনি। মেয়ে আমার নির্যাতন সইতে না পেরে প্রায় এক বছর আমার বাড়িতেই ছিল। গত শুক্রবার ২৫ হাজার টাকাসহ শ্বশুর বাড়িতে পাঠিয়েছিলাম। তবুও আজ শ্বাশুড়ি আর ননদ মিলে মেয়েকে হত্যা করে হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়েছে। আমি সুষ্ঠু বিচারের জন্য থানায় মামলা করব।’

বিনার শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে সুনসান নিরবতা চলছিল। দরজায় তালা ঝুলছে। দরজায় পাশে ইটের দেওয়াল একটু খানি ভাঙা। ঘরের ভিতরে কয়েক টুকড়ো ওড়নার কাটা অংশ পড়ে আছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রতিবেশী জানান, সকাল ১১ টার দিকে গৃহবধূ বিনাকে বাড়ির বাইরে বসে কাঁদতে দেখেন। তিনি বিনার কাছে কাঁদার বিষয় জিজ্ঞেস করেন। তখন বিনা তাকে বলেন, শ্বাশুড়ি – ননদ তাকে মারধর করেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আর এক নারী জানান, দুপুরে ভ্যানে করে বিনাকে হাসপাতালের দিকে নিয়ে গিয়েছিল শ্বাশুড়ি আর ননদ। কিন্তু তারা আর ফিরে আসেনি।

কুমারখালী থানার উপ পরিদর্শক (এস আই) দিবাকর হলদার জানান, খবর পেয়ে হাসপাতাল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি থানায় রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তে র রিপোর্ট হাতে আসলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। তবে হাসপাতালে শ্বশুর বাড়ির কাউকে পাওয়া যায়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।