খোকসায় থানা থেকে ফিরে গৃহবধূ ও স্কুল ছাত্রীর উপর হামলা

0
57

স্টাফ রিপোর্টার

থানা থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়ি ফিরেই অভিযোগকারী ভাবি ও তার ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়েকে তৃতীয় দফায় পিটেছে আসামি ও তার পরিবারের লোকেরা।

কুষ্টিয়ার খোকসার শোমসপুর ইউনিয়নের মাসালিয়া গ্রামে শুক্রবার সকালে গৃহবধূ বিলকিস (৩২) ও ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ে জুবায়া (১২) এর উপর তৃতীয় দফায় হামলা চালায় ওই গৃহবধূর দেবর নূর আমিন। আহত গৃহবধূ ও ছাত্রীটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্ষে ভর্তি করা হয়েছে।

চিকিৎসাধীন আহত গৃহবধূ জানান, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে বুধবার সকাল থেকে দেবর নূর আমিন ওই গৃহবধূকে দফায় দফায় বেধরক মার পিট করে। এ ঘটনায় তিনি খোকসা থানায় অভিযোগ করে। পর দিন থানা পুলিশ ভাবির নির্যাতনকারী দেবর নূর আমিনকে আটক করে। বৃহস্পতিবার থানায় বসে সালিশের পর দেবর নূর আমিন ছাড়া পান। এখানেই ঘটে বিপত্তি। বাড়ি ফিরে ভ্যান থেকে নেমেই গৃবধূর উপর দ্বিতীয় দফায় আবার হামলা চালায় দেবর নূর আমিন। শুক্রবার সকালে আবারও গৃহবধূ বিলকিস এবং তার ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ের উপর তৃতীয় দফায় হামলা চালায় দেবর ও তার লোকেরা। পরে স্থানীয়রা গৃহবধূ ও তার মেয়েকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্ষে ভর্তি করে।

আরো পড়ুন – খোকসায় শ্রমিক লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ

গৃহবধূর স্বামী নূর আলী জানান, তিনি ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন। বাড়ি থাকে না। তার স্ত্রী ও কন্যার উপর ভাই নূর আমিন দফায় দফায় হামলা করেছে। তার স্ত্রী থানায় অভিযোগ দিয়ে প্রতিকারের বদলে দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফায় মারা খেয়েছে। তবুও তিনি থাানার পুলিশের উপর ভরসা রেখে আবার মামলা করতে চাচ্ছেন বলে জানান।

অভিযুক্ত নূর আমিনের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হয় কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি।

গৃহবধূর কাছ থেকে প্রথম অভিযোগ নেওয়া পুলিশের এস আই আজিজ বলেন, দুই পক্ষ সমাধান করে বাড়ি গিয়ে আবার মারা মারি করেছে বলে জেনেছেন। আহত গৃহবধূর পক্ষ থানায় এসেছিল। চিকিৎসার জন্য গেছে আর আসেনি। কেউ মামলা দিলে তদন্ত সাপেক্ষে মামলা নেওয়া হবে।