ভোটারের খড়ায় কেন্দ্রে ঘুমিয়ে পড়েন পোলিং অফিসার

0
21
কেন্দ্রে ঘুমিয়ে পড়েন পোলিং অফিসার

শৈলকুপা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দ্বিতীয় দফার উপ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ তখন পুরোদমে চলছে। কিন্তু কেন্দ্রে ভোটারের খড়া। কেন্দ্রে কর্তব্যরত পোলিং অফিসাররা অনেকেই কর্মহীন হয়ে ঘুমিয়ে পড়েন।

রবিবার সকাল ৮টায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের দ্বিতীয় দফায় অনুষ্ঠিত উপ নির্বাচনের ভোট গ্রহন শুরু হয়। চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। জেলায় এটাই প্রথম ইভিএম ম্যাশিনে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় দফায় অনুষ্ঠিত উপ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে আব্দুল হামিক, আনারস প্রতীকে আরিফ রেজা মন্নু ও মোটরসাইকেল প্রতীকে আনিচুর রহমান প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন।

সকাল থেকে কেন্দ্র গুলোতে ভোটার উপস্থিতি ছিল খুবই কম। অনেক কেন্দ্রের পোলিং অফিসারদের অলস সময় কাটাতে দেখা যায়। একটি কেন্দ্রে এক পোলিং অফিসারকে ঘুমিয়ে নিতে দেখা গেছে।

এ চিত্র দেখা গেছে শৈলকুপা উপজেলার কবিরপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। এ কেন্দ্রের পোলিং অফিসার শামীমা নাসরিন শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য সহকারী হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি বলেন, ভোটার নেই, ঘুম চলে আসছে। তার বুথে দুই ঘণ্টায় একটা ভোট পড়েছে। কেন্দ্রের প্রিজাইর্ডিং অফিসার শাহিনুর ইসলাম বলেন, কেন্দ্রে ৩ হাজার ৪১০ জন ভোটার রয়েছেন। সকাল ১০টা পর্যন্ত ৫০টি ভোট পড়েছে।

উপজেলার বারইপাড়া কেন্দ্রে প্রথম ৫০ মিনিটে ২০ জন ভোটার ভোট দিয়েছেন। এই কেন্দ্রে মোট ভোটার ২ হাজার ৬৭১ জন। কেন্দ্রের প্রিজাইর্ডিং অফিসার ফুরকান আলী জানান, ভোটার উপস্থিতি একদমই কম।

জানা গেছে, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দ্বিতীয় বারের এই উপ-নির্বাচনে ২ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে আশা করা হচ্ছিল। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপে করতে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ১২ জন ম্যাজিস্ট্রেট ও ১ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনের দায়িত্বে রয়েছেন। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে ৫ জন পুলিশ সদস্যসহ আনসার সদস্যরা নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন।

আরো পড়ুন – খোকসায় আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৪ নভেম্বর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা মারা যাওয়ার পর ২০২১ সালের ২৮ ফেব্রæয়ারি প্রথম উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয় তার স্ত্রী শিকদার শেফালি বেগম। চলতি বছরের ১৬ মে তিনিও মারা গেলে পদটি আবারও শূন্য হয়।