কুষ্টিয়ায় প্রেম প্রস্তাব প্রত্যাক্ষান করায় স্কুলছাত্রী ছুরিকাহত

0
21
ঘাতক রানা ( ফেসবুক থেকে সংগৃহীত ছবি)

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় প্রেম প্রস্তাব প্রত্যাক্ষান করায় স্কুলছাত্রীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় একজন আটক হলেও মূলহোতা রানা (১৭) পালাতক রয়েছে।

শনিবার বিকালে সদর উপজেলার ঝাউদিয়া বাজার এলাকায় স্কুলছাত্রীর উপর হামলা চালানো হয়। আহত স্কুলছাত্রী কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ আশরাফুল নামে একজনকে আটক করেছেন।

আহত ছাত্রী ঝাউদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। আর অভিযুক্ত রানা সদর উপজেলার লক্ষীপুর খাতের আলী ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিার্থী।

আহত ওই ছাত্রী জানান, শনিবার বিকালে ঝাউদিয়া বাজারের কালিতলা এলাকায় প্রাইভেট পড়তে যায়। এক সময় সম্পর্কে দুলাভাই আশরাফুল ইসলাম দেখা করার জন্য খবর দেন। পড়া শেষে আমি গোলাপের হোটেলে দেখা করতে গেলে দেখি রানা সেখানে উপস্থিত আছেন। আমাকে দেখে রানা বলে, তোমার সমস্যা কি? তখন আমি বলি, আমার ছবি আপনার ছবির সঙ্গে জোড়া লাগিয়েছেন কেন? আমার ছবিগুলো ডিলিট করে দেন। এ সময় রানা জিজ্ঞাসা করে আমি তার সঙ্গে কথা বলি না কেন? এক পর্যায়ে পকেট থেকে ধারালো কিছু বের করে রানা আমার মুখে ও হাতে আঘাত করে। আমার মুখের ৪টি স্থানে আঘাত করেছে সে। এরপরই সে পালিয়ে যায়।

ওই ছাত্রী আরও অভিযোগ করে বলেন, আমি যখন অষ্টম শ্রেণিতে পড়তাম, তখন থেকে সে আমার পেছনে ঘোরে। আমি তাকে পাত্তা দেইনি।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফুল আলম বলেন, আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে এক ছাত্রী হাসপাতালে আসে। তার মুখে ও হাতে আঘাত রয়েছে। খুর জাতীয় কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। আঘাত গভীর নয়। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।

আরো পড়ুন – দৌলতপুরে সার ব্যবসায়ীর এক লক্ষ টাকা জরিমানা

ঝাউদিয়া বাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক উত্তম কুমার সরকার বলেন, বিকালের দিকে ঘটনাটি ঘটেছে। আমার স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী সে। এলাকার এক বখাটে ধারালো কিছুদিয়ে তাকে আঘাত করেছে বলে জানতে পেরেছি। আমরা খোঁজ-খবর রাখছি। পরিবার থেকে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার অফিসার ইনচার্জ আননুর জায়েদ বলেন, আশরাফুলকে আটক করা হয়েছে। রানা নামের যুবককে আটকের চেষ্টা চলছে। পরিবার থেকে এখনও কোন অভিযোগ আসেনি। তারপরও পুলিশ চেষ্টা করছে তাকে আটক করা জন্য।