ভেড়ামারায় ফিলিং স্টেশনে অগ্নিকান্ডের আরো এক যুবকের মৃত্যু

0
11

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় দফাদার ফিলিং স্টেশনে অগ্নিকান্ডের ৩ সপ্তাহ পর বিদ্যুৎ হোসেন (২৫) নামের আরো এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ওই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে পাঁচ জনে গিয়ে দাঁড়ালো।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

নিহত বিদ্যুৎতের চাচাতো ভাই মাহাবুল ইসলাম মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহত বিদ্যুৎ হোসেন ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদহ ইউনিয়নের পরানখালি এলাকার বিল্লাল হোসেনের ছেলে। তিনি ওই পেট্রোল পাম্পে হিসাবরক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবুর রহমান জানান, ওই পেট্রোল পাম্পে বিস্ফোরণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো কয়েকজন। অগ্নিকান্ডে হতাহতের ঘটনায় কোনো অভিযোগ না থাকায় এ ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি। তবে পুলিশের প থেকে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

আরো পড়ুন – খোকসায় শিশুর গলায় পাঁচ টাকার কয়েন আটকে গেলো

উল্লেখ্য, গত ১২ আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলার মহিষাডোরা এলাকায় দফাদার ফিলিং স্টেশনে শর্ট সার্কিট থেকে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে উপজেলার দিঘলকান্দি গ্রামের শাহাজুদ্দীনের ছেলে শাহাজুল (৩৫) ও একই এলাকায় তৌহিদুল ইসলামের ছেলে বিজয় (১৬) নিহত হন। এর আগে গত ১৩ আগষ্ট দিনগত রাত ১২টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন রাজিব উদ্দিন (২৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়। পরবর্তীতে গত ১৮ আগস্ট ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দৌলতপুর উপজেলার দিঘলকান্দি গ্রামের মৃত জয়নালের ছেলে রিমন (১৪) নামের এক কিশোরের মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় গত ১৩ আগষ্ট ভোরে তাকে সেখানে ভর্তি করা হয়েছিল।

অগ্নিকান্ডের ঘটনায় গুরুতর আহতাবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন ছিলেন বিদ্যুৎ হোসেন। শরীরের মাত্র ১৭ শতাংশ দগ্ধ হলেও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি।