কুষ্টিয়ায় শিশু ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন অপর জনের কারাদন্ড

0
13

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে শিশু ধর্ষণ মামলায় জনি (৩৪) নামে এক যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ এক ল টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। এদিকে অস্ত্র মামলায় অপর এক যুবকের ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড হয়েছে।

সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক সৈয়দ হাবিবুল ইসলাম জনাকীর্ন আদালতে দন্ডপ্রাপ্ত আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন। যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত আসামি জেলার দৌলতপুর উপজেলার হাফিজুল প্রামানিকের ছেলে জনি (৩৪)।

রাষ্ট্রপরে কৌঁসুলি (পিপি) এ্যাড. আব্দুল হালিম রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১২ মার্চ বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার ফিলিফনগর গ্রামের মাঠে গোলাবাড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে (৭) ঘাস কাটার সময় আসামী জনি ফুসলিয়ে পাশ^বর্তী তামাক েেতর মধ্যে ডেকে নিয়ে গিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় আক্রান্ত শিশুটির চিৎকার শুনে অপর দুই শিশু এবং মাঠে কর্মরত অন্যান্য চাষীরা ছুটে আসলে শিশুটিকে তামার েেতর মধ্যে ফেলে রেখে ধর্ষক জনি পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই দিনই নির্যাতনের শিকার ওই শিশুটির পিতা বাদী হয়ে একমাত্র আসামী জনির নাম উল্লেখ করে দৌলতপুর থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ১৮ মার্চ দৌলতপুর থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক শরিফুল ইসলাম আসামী জনির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।

অপর দিকে দৌলতপুর থানায় অস্ত্র মামলায় এক যুবকের দশ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালত ও স্পেশাল ট্রাইবুনাল-২ আদালতের বিচারক তাজুল ইসলাম এ রায় প্রদান করেন। রায় ঘোষণার সময় দন্ডপ্রাপ্ত আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

কারাদন্ডাদেশ প্রাপ্ত লিটন দৌলতপুর উপজেলার বাহিরমাদি পূর্বপাড়া এলাকার মকবুল সরদারের ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই জেলার দৌলতপুর থানা পুলিশের একটি টিম অভিযান চালিয়ে উপজেলার বাহিরমাদি পূর্বপাড়া এলাকায় রোকনুজ্জামানেরর দোকানের সামনে পৌঁছালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে রাস্তা দিয়ে হেঁটে আসা দুজন যুবক পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় এক যুবক পালিয়ে গেলেও পুলিশ লিটনকে আটক করে এবং তার দেহ তল্লাশী চালিয়ে একটি কালো রংয়ের বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলিও ২ টি ম্যাগজিন উদ্ধার করে। পরে দৌলতপুর থানার উপ-পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত শেষে ২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর আদালতে চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ পরিদর্শক গৌতম কুমার মন্ডল।

আরো পড়ুন – কুমারখালীতে দূর্গাপূজা উদযাপনে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের কৌসুলি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, দৌলতপুর থানার অস্ত্র মামলায় আসামির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ স্ব্যা শুনানী শেষে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত আসামীক কারাদন্ডের এ আদেশ প্রদান করেন।