খোকসায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষে চলছে ইউনিয়ন পরিষদ

32

স্টাফ রিপোর্টার

কুষ্টিয়ার খোকসার মোড়াগাছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস ও শ্রেণি কক্ষ ভাড়া নিয়ে ১ নং খোকসা ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চলানো হচ্ছে। এতে ওই মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যহত হচ্ছে বলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন।

এলাকাবাসী অভিযোগ, ইউনিয়ন পরিষদ বর্তমান চেয়াম্যান আব্দুল মালেক নিজে বিদ্যালয়টির সভাপতি হওয়ার সুবাদে তার ব্যক্তিগত সুবিধার জন্য বিদ্যালয়টির পুরাতন অফিস ও একটি শ্রেণি কক্ষ নাম মাত্র ভাড়ায় ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। স্কুল কম্পাউন্ডে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চালানোয় প্রতিদিনই বিভিন্ন কাজ নিয়ে শতশত মানুষ এখানে জমায়েত হয়। ফলে পরিবেশ ও শব্দ দূষণের সৃষ্টি হচ্ছে। আর এ সব কারণেই বিদ্যালটির শ্রেণি পাঠদানসহ শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। অপর দিকে পরিষদের সেবা নিতে আসা জনসাধারণ স্থানসংকলন না হওয়ায় বিদ্যালয়টির চারতলা মূল ভবন ও গাছের ছায়ায় তারা আশ্রয় নিতে বাধ্যহন।

উপজেলা সদরের পৌর এলাকার প্রাণ কেন্দ্রে উপজেলার ১ নং খোকসা ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব কমপ্লেক্স ও জমি ছিল। বিগত সময়ের চেয়ারম্যান আয়ুব আলী রাজনৈতিক সুবিধা পেতে প্রায় ২ একর জমি ও কমপ্লেক্স পৌরসভার কাছে হস্তান্তর করেন। এর পর থেকে পরিষদের কার্যক্রম চলছে বিভিন্ন ভাড়া ঘরে। প্রায় একযুগ ধরে চেয়ারম্যান পাল্টালেই পাল্টে যায় পরিষদের অফিসের স্থান।

ছাত্র অভিভাবক ফারুক হোসেন অভিযোগ করে বলেন, গ্রাম্য সালিশ বৈঠক, পারিবারিক বিরোধ, জন্মনিবন্ধন সনদ, নাগরিক সনদসহ নানা কাজে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ পরিষদে আসেন। ফলে স্কুলের শিার্থীদের মারাত্মক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তারা স্কুল ক্যাম্পাস থেকে ইউনিয়ন পরিষদ স্থানান্তরের দাবি জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিার্থী জানান, বিদ্যালয়টিতে কয়েশ ছাত্র ছাত্রী লেখা-পড়া করে। সবাই উঠতি বয়সের। স্কুলের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের কারণে তারা পড়ালেখায় মনোযোগ হারিয়ে ফেলি।

সংরতি নারী আসনের মেম্বার নামিয়া সুলতানা নিলা বলেন, ভাড়া জায়গায় বসানো হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের অফিস। এতে করে আমাদের সমস্যা হচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদের ভূমি এবং ভবন জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজন। সে েেত্র সবাই সহযোগিতা দরকার।

প্রধান শিক হাসান আলী বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব কোন জায়গা না থাকায় মাসিক ২ হাজার টাকা ভাড়ায় স্কুলের রুম গুলো দেওয়া হয়েছে। আমাদের যখন প্রয়োজন তার তিন মাস আগে বললে তারা ছেড়ে দেবে। ইউনিয়ন পরিষদের কারণে তাদেরও অনেক সমস্যা হচ্ছে বলে জানান।

খোকসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মোড়াগাছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল মালেক এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাজমূল হক বলেন, তিনি পরিদর্শন করে দেখেছেন। তার মনে হয়নি, ইউনিয়ন পরিষদ চলায় স্কুলের কোন ক্ষতি হয়েছে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নিজেই স্কুল পরিচালনা পরিষদের সভপতি। তিনি কখনোই চাইবেন না স্কুল বা শিক্ষার ক্ষতি হোক। পরিষদের বিষয়টি মানবিক বিচেনায় দেখার জন্য তিনি অনুরোধ করেন। তিনি আরো বলেন নিয়োগ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে বিরোধ রয়েছে তার সূত্র ধরে অনেকেই তার কাছে ফোনে অভিযোগ করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার স্বীকার করেন স্কুল কমপ্লেক্স বা তার সামনে জনসমাবেশ হয় এমন কোন দোকান বা প্রতিষ্ঠান না করার বিষয়ে সরকারের নির্দেশনা রয়েছে।

আরো পড়ুন – খোকসায় ভেজাল গুর তৈরীর দায়ে ব্যবসায়ীকে জরিমানা

খোকসা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন বিশ্বাস জানান, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভাড়া নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চলছে এমন টা আমার জানা নেই। তবে স্কুলের রুম ভাড়া নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চলতে পারে না। এই বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email