কুমারখালীতে ছাত্রী উত্যক্তের ঘটনায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হামলা

0
18

কুমারখালী প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে দুই এসএসসি পরীক্ষার্থীর পথরোধ ও উত্যক্তের ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ছাত্রলীগের দু’পরে মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার দুপুরে উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের পূর্বাশা কাব এলাকায় প্রথম দফায় হামলার ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে যদুবয়রা ইউনিয়নের জয়বাংলা বাজারে পৃথক হামলার এ ঘটনা ঘটে। হামলায় যদুবয়রা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল রানা (২৮), ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিল্লাল হোসেন (৩২), ৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রনি আহমেদ (২৩) ও চর এতমামপুর গ্রামের মৃত সোনাউল্লাহের ছেলে বাবলু শেখ (৪০) আহত হন। আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত জয়বাংলা বাজারে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। নিরাপত্তার স্বার্থে বাজারের দোকানপাট বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা।

পুলিশ ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, পান্টি কেন্দ্রর দুই এসএসসি পরীক্ষার্থী পরীক্ষা শেষে যদুবয়রার দিকে আসছিল। পথিমধ্যে পূর্বাশা কাব এলাকায় হেলমেট ও মুখবাধা অবস্থায় ৫ থেকে ৬ জন হাতুড়ি ও লাঠিসোটা হাতে নিয়ে ছাত্রীদের বহন কারী গাড়ির গতিরোধ করে। এ সময় এক শিক্ষার্থীর ভাই রনি আহমেদকে তারা হাতুড়ি পিটা করে রক্তাক্ত জখম করে। খবর পেয়ে পরীক্ষার্থীর বাবা ও স্বজনরা যদুবয়রা জয়বাংলা বাজারে অবস্থান নেন। বেলা দেড়টার দিকে জয়বাংলা বাজারে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ হয়।

স্থানীয়রা আরো জানান, এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যদুবয়রা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান ও পরাজিত চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সাবুর মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। দুই গ্রুপের বিরোধের জেরে ইউনিয়নে উত্তাপ বিরাজ করছে। এবিষয়ে আহত ছাত্রলীগ নেতা রনি আহমেদ বলেন, ছোট বোনকে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে নিয়ে বাড়িতে ফিরছিলাম। পথিমধ্যে পূর্বাশা কাব এলাকায় পৌছালে হেলমেট ও মুখবাধা ৫ থেকে ৬ জন পথ অবরোধ করে বোনকে উত্যক্ত করতে থাকে। বাঁধা প্রদান করলে আমাকে হাতুড়িপিটা করে গুরুতর আহত করে। এসময় আমি কয়েকজনকে চিনে ফেলি। তাঁরা হলেন প্রতিপরে বিল্লাল, সোহেল ও বায়োজিদ।

উত্যক্তের শিকার এক পরিক্ষার্থীর বাবা শাজাহান আলী বলেন, আমার মেয়ে পরীক্ষা শেষে বাড়ি আসছিল। পথিমধ্যে প্রতিপরে লোকজন ইভটিজিং করে। তিনি থানায় মামলা করবেন।

আরো পড়ুন – ঝিনাইদহে গলায় গামছা পেঁচানো প্রতিবন্ধির মৃতদেহ উদ্ধার

হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বিল্লাল হোসেন বলেন, আমাদের চেয়ারম্যানের ওপর হামলার খবর পেয়ে বাজারে ছুটে আসি। এসময় প্রতিপরে তুষার, বাসার, আনিস মাষ্টার, রিপন মন্ডল আমাদের উপর হামলা চালায়।