কুমারখালীতে সম্মানী ভাতা বৃদ্ধির দাবিতে কাউন্সিলরের স্ট্যাটাস

12

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

দ্রব্যমুল্যের উর্ধ্বগতি। সম্মানী ভাতা পাই মাত্র দশ হাজার টাকা। আমার অন্য পেশা নেই। এ দিয়ে সংসার চলছেনা। এই অবস্থায় সোস্যাল মিডিয়ায় ভিডিও বার্তা ও স্ট্যাটাস দিয়েছেন কুমারখালী পৌরসভার এক কাউন্সিলর। প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে সম্মানী ভাতা বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার ভোরে ওই পৌর কাউন্সিলর তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুকে ভাতা বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। গত শনিবার রাত থেকে সোস্যাল মিডিয়ায় তিনি ভাতা বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে আসছেন। বিষয়টি উর্দ্ধতনদের নজরে আনতে সোস্যাল মিডিয়ায় ও গণমাধ্যমের সহযোগীতাও কামনা করেছেন তিনি।

কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড থেকে পরপর তিনবার নির্বাচিত কাউন্সলির এস এম রফিক। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ কাউন্সিলর এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছেন।

সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এই কাউন্সিলর তার অভাব, অনটন ও অসহায়ত্বের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করে বলেছেন, সম্মানী ভাতা বৃদ্ধির নির্দেশ প্রদান করা হোক। সুস্থ ভাবে সংসার চালানোর সুযোগ দেওয়া হোক।

পৌরসভা গুলোর অধিকাংশ কাউন্সিলরদের সবারই এরকম দুরাবস্থা বলেও তিনি দাবি করেছেন।

গত মঙ্গলবার ফেসবুকে আরেক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, পৌর কাউন্সিলরদের ভাতা দেওয়া বন্ধ করুন। নইলে ভাতা বৃদ্ধি করুন। সন্মানী ভাতার নামে অসম্মানী- মানী না মানবো না। বাংলাদেশ পৌর কাউন্সিলরদের প্রাণের দাবী সময় উপযোগী সন্মানী ভাতা বৃদ্ধি করুন।

আরো পড়ুন – কুমারখালীর ডাকুয়া নদীতে সেতু নির্মাণে কচ্ছপ গতি

কাউন্সিলর এম এম রফিক বলেন, বর্তমানে দ্রব্যমুল্যের উর্ধ্বগতি। সম্মানী ভাতা পাই মাত্র দশ হাজার টাকা। আমার অন্য পেশা নেই। এ দিয়ে সংসার চলছে না। খরচ মেটাতে হিমশিম খাচ্ছি। কাউন্সিলরদের সম্মানী ভাতা বৃদ্ধির জন্য দাবি জানাচ্ছি। সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নজরে আনতে চাই।

Print Friendly, PDF & Email