কুমারখালীর রেললাইন থেকে উদ্ধার নিহত তরুণীর পরিচয় মিলেছে

0
14
নিহত তরুণীর বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভিড়

তিনি টিক টক ভিডিও বানাতেন

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুমারখালীতে রেললাইনের ওপর পড়ে থাকা সেই অজ্ঞাত তরুণীর মরদেহের পরিচয় মিলেছে। তিনি টিকটক ভিডিও তৈরি করতেন।

রবিবার দুপুরে পোড়াদহ রেলওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) তন্ময় ভট্টাচার্য এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, নিহত ওই তরুণী কুমারখালী পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের শেরকান্দি এলাকার সাইদুল ইসলামের মেয়ে শাম্মী আক্তার ওরফে সামিয়া (২০)। নিহত তরুণীর মরদেহটি শনাক্ত করেছেন তার চাচা আনোয়ার হোসেন ও ছোট বোন সাদিয়া খাতুন। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মামলা নম্বর ২৮।

শনিবার রাত সোয়া নয়টার দিকে উপজেলার সদকী ইউনিয়নের দড়ি মালিয়াট এলাকার রেললাইনের ওপর থেকে তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করে এবং সুরতহাল করে মর্গে পাঠায় পুলিশ। তবে ওই তরুণী আত্মহত্যা করেছেন, নাকি তাকে হত্যা করা হয়েছে! তা নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

নিহতের মা হাসিনা খাতুন বলেন, ঘটনার দিন (শনিবার) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে উপজেলার সদকী ইউনিয়নের দড়ি মালিয়াট গ্রামের ফুফু কাঞ্চন খাতুনের বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছিল। কিন্তু রাত আটটা পর্যন্ত আর বাড়ি ফিরে না আসায় খোঁজাখুজি শুরু করি। এর পর সকালে একটা লাশ উদ্ধারের খবর শুনে কুষ্টিয়া মর্গে যায়। মর্গে গিয়ে মেয়ের ত বিত লাশ পাই।

তিনি আরো বলেন, তার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারেনা। আত্মহত্যা করার মত কোনো কারণ নেই। মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহতের ফুফু কাঞ্চন খাতুন বলেন, শনিবার সামিয়া আমাদের বাড়িতে যায়নি। রাতে আমাদের বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূর থেকে এক লাশ পাওয়ার খবর শুনেছিলাম।

কুমারখালী পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এস এম রফিক বলেন, মেয়েটি আমার এলাকার। তিনি টিকটক ভিডিও তৈরির কাজ করতেন বলে জানা গেছে। তবে তাঁর মৃত্যু রহস্যজনক।

আরো পড়ুন – মিরপুরে ধান ক্ষেত মিলল নবজাতকের মরদেহ

পোড়াদহ রেলওয়ে থানার ওসি ইমদাদুল হক বলেন, খবর পেয়ে রাতে অজ্ঞাত তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়া গেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।