খোকসায় গুলিবিদ্ধসহ আহত ৫ জন

43
হামলার পুরাতন ক্ষত নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে জহুরুল সমর্থকের একটি ঘর

স্টাফ রিপোর্টার

কুষ্টিয়ার খোকসায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় গুলিবিদ্ধসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। এসময় একাধিক বাড়িতে হামলায় ভাংচুর করেছে হামলাকারীরা।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তোভোগী সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার পর উপজেলার ওসমানপুর ইউনিয়নের ওসমানপুর কলপাড়া গ্রামে জহুরুল মেম্বরের ভাই হাসমত আলীর উপর প্রতিপক্ষ হামলা চালিয়ে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনার পর জহুলের লোকজন জমায়েত হতে চেষ্টা করে। এ খবর ছড়িয়ে পরলে প্রতিপক্ষের অস্ত্রধারীরা গুলি ছুড়ে গ্রামের মধ্যে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। এ সময় কাওসার (২৬) নামের এক যুবক গুলিবিদ্ধ আহত হয়। এ ছাড়া হৃদয় (১৮), মুকাজ্জেল (৪০), অপর এক স্কুল ছাত্রীসহ ৫জন আহত হয়। আহতদের প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নেওয়া হয়। পরে তাদের কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

কলপাড়া গ্রামের হাসিয়া খাতুন জানান, তিনি সবে এশার নামাজে দাঁড়িয়েছেন। হঠাৎ করে বৃষ্টির মত গুলির শব্দে তিনি নামাজ ছেড়ে বাড়ির উঠানে দাঁড়ান। এক পর্যায়ে স্কুল পড়–য়া দুই মেয়ে নিয়ে নিজের সোবার ঘরে আশ্রয় নেন। তার পরে তার বাড়িতে আক্রমান করে প্রতিপক্ষ সামিরুলের লোকেরা। হামলার আগে তার বাড়ির বিদ্যুতের মিটার ভেঙ্গে বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়। হামলাকারীদের ইটের আঘাতে তার অষ্টম শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়ে আহত হয়।

হাসিয়া খাতুন আরো জানান, গত ইউপি নির্বাচনের পর থেকে প্রতিপক্ষের হামলার ভয়ে তার স্বামী আজাদ মিস্ত্রী গ্রাম ছাড়া। বচ্চাদের সাথে নিয়ে তিনি গ্রামে বাস করছেন। বৃহস্পতিবার রাতে হামলার সময় গ্রামে পুলিশ উপস্থিত ছিল বলেও তিনি দাবি করেন।

হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ নিজের বাড়ির বিদ্যুতের মিটার দেখাচ্ছেন এক গৃহিনী।

এক গ্রামের রিপনের স্ত্রী শিল্পী খাতুন জানান, স্থানীয় সামিরুলের নেতৃত্বে গত ১৮ মাসে তার বাড়িতে কমপক্ষে ৪ বার হামলা হয়েছে। ঘরের টিভি ফ্রিজ আসবাবপত্র রক্ষা পায়নি হামলাকারীদের অস্ত্রের আঘাত থেকে। হামলাকারীদের ভয়ে তার প্রতিটি রাত কাটে। রাতের আধার নামলেই এ গ্রামসহ আশে পাশের ৩/৪ টি গ্রামের মানুষ মধ্যে আতঙ্কে নেমে আসে।

ওসমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর জহুরুল বলেন, সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন কেন্দ্র করে বিরোধের সৃষ্টি হয়। তবে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচন কেন্দ্র করে এখন হামলা হচ্ছে। প্রতিপক্ষ সামিরুল গ্রæপ ঘোড়া লীগের নির্বাচন করেছিল। নির্বাচনে নৌকা প্রার্থীর কাছে হেরে আওয়ামী লীগ কর্মীদের উপর হামলা করছে।

সামিরুলের সাথে কথা বলতে তার বাড়িতে যাওয়া হয় কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি। তার ফোনও নম্বর পাওয়া যায়নি।

আরো পড়ুন – ঝিনাইদহে যুবকের লাশ উদ্ধার

থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এ ছাড়া সন্ধার পর মেম্বর মামলা লিখে নিয়ে আসবেন বলে জানিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email