প্রেমিকের পরে আত্মহত্যা করলো প্রেমিকা

100
সুপ্রিয়া ও তপু

ফরিদপুর প্রতিনিধি

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের মনোহরদিয়া গ্রামের নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন সুপ্রিয়া দাস। তিনি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে তিনি আত্মহত্যা করেন।

প্রেমিক তপু মজুমদারের আত্মহত্যার দেড় মাসের ব্যবধানে প্রেমিকা সুপ্রিয়া দাসও আত্মহনণের পথ বেছে নেন। তারা দুজনে দীর্ঘদিন আত্মিক সর্ম্পকে আবদ্ধ ছিলেন।

সুপ্রিয়া দাসের সহপাঠীরা জানান, কুয়েটের শিক্ষার্থী তপু মজুমদারের সঙ্গে উচ্চ মাধ্যমিক থেকে সুপ্রিয়া দাসের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। দুজনের গ্রামের বাড়ি একই উপজেলায়। উভয় পরিবার মেনে নিয়েছিল তাদের সম্পর্ক।
তবে ১৪ জুন রাতে মুঠোফোনে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে সে রাতে সুপ্রিয়া কান্নাকাটি করে ঘুমিয়ে পড়েন। কিন্তু পরদিন সকালে ঘুম ভেঙ্গে তপুর আত্মহত্যার কথা জানতে পারেন। এরপর থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়নে সুপ্রিয়া।

আরও দেখুন-খোকসার কিশোরী তান্ত্রিকের তেলেসমাতি

সুপ্রিয়ার পরিবারের সদস্যরা জানান, তপুর আত্মহত্যার পর থেকে বাড়ির সাবাই সুপ্রিয়াকে চোখে চোখে রাখতেন। ঘটনার দিন সবাই বাড়ির বাইরে গেলে সুপ্রিয়া ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে দড়ি ঝুলিয়ে আত্মহত্যা করেন। এক ভাই ও এক বোনের মধ্যে সুপ্রিয়া বড় ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email