কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাংচুরে আটকদের রিমান্ড শুনানী মঙ্গলবার

17
atok-kushtiaDroho-6-p8

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনায় আটক দুই মাদ্রাসা শিক্ষার্থীসহ চার আসামীরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তবে মঙ্গলবার তাদের রিমান্ড শুনানী দিন ধার্য করেছে আদালত।

সোমবার দুপুর দেড়টায় কুষ্টিয়ার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক রেজাউল করীমের এজলাসে চার আসামিকে হাজির করে পুলিশ। পুলিশের দায়ের করা মামলায় আটক চার আসামীকে আদালতে হাজির করে পুলিশের পক্ষ থেকে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত এ বিষয়ে শুনানীর জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করে আসামীদের কারাগারে প্রেরণের আদেশ দেন।

মামলাল তদন্তকারী কর্মকর্তা কুষ্টিয়া মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক নিশিকান্ত দাস জানান, ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের দঃবিঃ ১৫(৩) তৎসহ ৪২৭/৩৪ ধারায় মামলায় আসামীদের আদালতে সোপর্র্দ করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। এর মধ্যে দুই মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর ১০দিন এবং একই মাদ্রাসার শিক্ষকদ্বয়ের ৭ দিন করে রিমান্ড আবেদন করা হয়।

আদালতে সপর্দকরা আসামীদের মধ্যে রয়েছে – কুষ্টিয়ার জুগিয়ার মাদ্রাসা ইবনে মাসউদ (রা.) এর হেফজ বিভাগের ছাত্র ও মিরপুর উপজেলার শিংপুর গ্রামের সমশের মৃধার ছেলে আবু বক্কর ওরফে মিঠুন (১৯) এবং দৌলতপুর উপজেলার ফিলিফনগর গ্রামের সামছুল আলমের ছেলে সবুজ ইসলাম ওরফে নাহিদ (২০), একই মাদ্রাসার শিক্ষক ও মিরপুর উপজেলার ধুবইল গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মোঃ আল আমীন (২৭) এবং পাবনা জেলার দিয়াড় বামুন্দি গ্রামের আজিজুল মন্ডলের ছেলে মোঃ ইউসুফ আলী (২৭)।
উল্লেখ্য, কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে পৌরসভার অর্থায়নে নির্মানাধীন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য শুক্রবার রাতে দুর্বৃত্তরা ভেঙ্গেফেলে। পরে ঘটনাস্থলে থাকা সিসিটিভির ফুজেট সংগ্রহ করে পুলিশ। শনিবার ও রবিবার পুলিশ অভিযান চালিয়ে কুষ্টিয়ার জুগিয়া এলাকার একটি মাদ্রাসার দুই ছাত্র এবং তাদের সহযোগিতা করার জন্য দুই শিক্ষককে গ্রেফতার করে। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ নিয়ে দেশব্যাপী ইসলামপন্থি বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিবাদের মধ্যেই এ ঘটনা নিয়ে কুষ্টিয়াসহ দেশব্যাপী তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email